খেলাধুলাসর্বশেষ

শেষ মুহূর্তের গোলে কষ্টার্জিত জয় ম্যানসিটির

প্রথমে গোল দিয়ে এগিয়ে গেলেও পরে দুই মিনিটের ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ে ম্যানসিটি। তবে বদলি হিসেবে মাঠে নেমেই কেভিন ডি ব্রুইন ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হলেন। তার গোলেই সমতায় ফেরে গার্দিওলার শিষ্যরা। এরপর ইনজুরি সময়ে ডি ব্রুইনের পাসের গোলে নিউ ক্যাসলের বিপক্ষে ৩-২ ব্যবধানে জয় নিয়েই ঘরে ফিরেছে সিটিজেনরা।
সেন্ট জেমস পার্কে নিউ ক্যাসলের বিপক্ষে মৌসুমের প্রথম গোল করেন কেভিন ডি ব্রুইন। গত আগস্ট থেকে দীর্ঘদিন ইনজুরিতে থাকার কারণে মাঠেই থাকতে পারেননি। তার অনুপস্থিতিতে ভুগতে হয়েছে ম্যানসিটিকেও। পয়েন্ট টেবিলে পিছিয়ে পড়তে হয় তাদের।
যদিও কষ্টার্জিত এই ২০ ম্যাচে ম্যানসিটির পয়েন্ট ৪৩। অ্যাস্টন ভিলাকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা। ২০ ম্যাচে ভিলার পয়েন্ট ৪২। সমান সংখ্যক ম্যাচে ৪৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে লিভারপুল।
ম্যাচের ৬৯তম মিনিটে মাঠে নামেন ডি ব্রুইন। নেমেই (৭৪তম মিনিটে) দারুণ একটি ফিনিশিং টানেন তিনি। নিচু শটে তিনি বল জড়িয়ে দেন প্রতিপক্ষের জালে। তার গোলেই ২-২ সমতায় ফেরে সিটি। এরপর ইনজুরি সময়ে ডি ব্রুইনের পাস থেকে গোল করে ম্যানসিটিকে জয় এনে দেন অস্কার বব।
২৬ মিনিটে বার্নার্ডো সিলভার গোলে এগিয়ে যায় সিটিজেনরা। তবে দ্রুত‌ই সমতায় ফেরে নিউ ক্যাসল। ৩৫ মিনিটে আলেকজান্ডার আইজ্যাক। ২ মিনিটের ব্যবধানে এগিয়ে যায় স্বাগতিক ক্যাসল। এবার গোল করেন অ্যান্থোনি গর্ডন।
৭৪ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইনের গোলে সমতায় ফেরে ম্যানসিটি। ৯০+১ মিনিটে বই ব্রুইনের পাসে অস্কার ববের গোলে জয় নিয়ে‌ মাঠ ছাড়ে ম্যানচেস্টার সিটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *