অর্থনীতিসর্বশেষ

ভোটের পর ইউনিয়ন ক্যাপিটালের চমক

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার পর দেশের শেয়ারবাজার ইতিবাচক ধারায় ফেরার ইঙ্গিত দিচ্ছে। বাজার ইতিবাচক ধারায় ফেরার মধ্যে গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া চার কার্যদিবসে ইউনিয়ন ক্যাপিটাল দাম বাড়ার বাড়ার ক্ষেত্রে বড় ধরনের দাপট দেখিয়েছে। এই চার কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ার দাম ২৭ শতাংশের ওপরে বেড়ে গেছে। অর্থাৎ চার দিনে কোম্পানিটির ১০০ টাকার শেয়ারে মুনাফা হয়েছে ২৭ টাকার বেশি।
গত সপ্তাহের লেনদেন শুরু হওয়ার আগে ইউনিয়ন ক্যাপিটালের প্রতিটি শেয়ারের দাম ছিল ৯ টাকা ২০ পয়সা। এক শ্রেণীর বিনিয়োগকারীদের কাছে কোম্পানিটির শেয়ার বিনিয়োগের ক্ষেত্রে পছন্দের শীর্ষে চলে আসায় সপ্তাহ শেষে দাম বেড়ে ১১ টাকা ৭০ পয়সায় দাঁড়িয়েছে। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিটি শেয়ারের দাম বেড়েছে ২ টাকা ৫০ পয়সা বা ২৭ দশমিক ১৭ শতাংশ। এর মাধ্যমে গত সপ্তাহে ডিএসইতে দাম বাড়ার শীর্ষ স্থানটি দখল করেছে কোম্পানিটি। গত সপ্তাহের চার কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ার দাম সম্মেলিতভাবে বেড়েছে ৪৩ কোটি ১৪ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।
শেয়ারের এমন দাম বাড়া কোম্পানিটি সর্বশেষ ২০১৫ সালে বিনিয়োগকারীদের ৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ দেয়। লোকসানে নিমজ্জিত হওয়ায় কোম্পানিটি এরপর বিনিয়োগকারীদের আর লভ্যাংশ দিতে পারেনি। সর্বশেষ প্রকাশিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২৩ সালের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নয় মাসের ব্যবসায় কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি ৭ টাকা ৩৯ পয়সা লোকসান করেছে।
এদিকে, শেয়ার দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ায় বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ কোম্পানিাটির শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে গত সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৬ কোটি ৩৭ লাখ ২০ হাজার টাকা। আর প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৯ কোটি ৯ লাখ ৩০ হাজার টাকা।
হঠাৎ শেয়ারের এমন দাম বাড়া কোম্পানিটি ২০০৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ১৭২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা পরিশোধিত মূলধনের এই কোম্পানিটির শেয়ার সংখ্যা ১৭ কোটি ২৫ লাখ ৭৩ হাজার ৮৪৩টি। এর মধ্যে ৩৩ শতাংশ আছে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের হাতে। বাকি শেয়ারের মধ্যে ৪৬ দশমিক ৭১ শতাংশ শেয়ার আছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে। আর প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ২০ দশমিক ২৯ শতাংশ শেয়ার আছে।
ইউনিয়ন ক্যাপিটালের পর গত সপ্তাহে সর্বোচ্চ দাম বাড়ার তালিকায় ছিল রূপালী ব্যাংক। সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার দাম বেড়েছে ১৯ দশমিক ৭৫ শতাংশ। ১৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ দাম বাড়ার মাধ্যমে পরের স্থানে রয়েছে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স।
এছাড়া গত সপ্তাহে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় থাকা রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলসের ১৭ দশমিক ২৪ শতাংশ, বসুন্ধরা পেপারের ১৬ দশমিক ৪৫ শতাংশ, খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগের ১৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ, এফএএস ফাইন্যান্সের ১৪ দশমিক ৮১ শতাংশ, এআইবিএল ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের ১৪ দশমিক ৬৭ শতাংশ, মাইডস ফাইন্যান্সের ১৪ দশমিক ২৯ শতাংশ এবং প্রাইম ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের ১২ দশমিক ৯০ শতাংশ দাম বেড়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *