বন্ধুকে উদ্ধার করতে গিয়ে খুন হলো যুবক

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় বন্ধুকে উদ্ধার করতে গিয়ে পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের কুড়ালের কোপে মো. তারেক (২৫) নামে এক যুবক খুন হয়েছেন। তিনি উপজেলার ছদাহা ইউনিয়নের মুহুরী পাড়ার ছিদ্দিক আহমদের ছেলে।

বৃহস্পতিবার ৮ এপ্রিল রাত ৮টা থেকে সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার ছদাহা ইউনিয়নের নুনুর বাপের হাটের উত্তর পার্শ্বের মাঝের পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ছুরিকাঘাতে ছদাহা ইউনিয়নের মুহুরী পাড়ার শাহ আলমের ছেলে মো. হেলাল উদ্দিন (২২) ও একই ইউনিয়নের হাসমতের দোকান এলাকার ভূঁইয়া বাড়ির মো. এনামুল হকের ছেলে মো. শহিদ (২২) বেধড়ক পিটুনিতে গুরুতর আহত হয়েছেন। বর্তমানে তারা চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

খালের মধ্য থেকে স্বামী-স্ত্রীর হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার

তারেকের চাচাতো ভাই ফরহাদ ইসলাম জানান, ছদাহা ইউনিয়নের নুনুর বাপের হাট এলাকার মিনহাজ ও জুয়েল নামে দুই যুবকের সাথে বিগত এক বছর ধরে নিহত তারেকের বন্ধু শহিদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। বৃহস্পতিবার বিকালে চাকরির কারণে শহিদ নুনুর বাপের হাটে গেলে তাকে আটক করে মিনহাজ ও জুয়েলসহ তাদের সাঙ্গ-পাঙ্গরা বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। খবর পেয়ে নিহত তারেক ও তার তিন বন্ধু হেলাল, আবদুল্লাহ ও রকিবকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে গেলে সেখানে মিনহাজরা প্রথমে তারেককে কুড়াল দিয়ে দুই পায়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে ফেলে চলে যায়। এ সময় হামলাকারীদের ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন হেলাল ও শহিদ। অপরদিকে, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তারেক ঘটনাস্থলে মারা যান। এ খবর তারেক ও তার বন্ধুদের পরিবারে পৌঁছলে তাদের স্বজনরা ঘটনাস্থল থেকে মৃত তারেক আহত হেলাল ও শহিদকে উদ্ধার করে কেরানীহাটের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসে। পরে গুরুতর আহত দুজনকে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সাতকানিয়া থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, প্রাথমিকভাবে পূর্ব বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। গুরুতর আহত দুজনকে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপরাধীদের ধরার জন্য ইতিমধ্যে পুলিশ কাজ শুরু করেছে।

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »