আগুয়েরোর সিটি অধ্যায় শেষ হচ্ছে

ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটির স্বর্ণযুগের অন্যতম ত্রাতা আর্জেন্টাইন ফরওয়ার্ড সার্জিও আগুয়েরো। চোটের কারণে চলতি মৌসুমে একাদশে অনিয়মিত হওয়ার পর থেকে শোনা যাচ্ছিল গুঞ্জন। শেষ পর্যন্ত সেটিই সত্যি হতে যাচ্ছে। চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ায় মৌসুমের পর ফ্রি ট্রান্সফারে বিদায় নিতে যাচ্ছেন তিনি। শেষ হচ্ছে ম্যানচেস্টার সিটিতে তার উজ্জ্বল সময়ের। ক্লাবটির পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

২০১১ সালে আতলেতিকো মাদ্রিদ থেকে সিটিতে যোগ দেওয়ার পর ক্লাবটির হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৩৮৪ ম্যাচে রেকর্ড ২৫৭ গোল করেছেন আগুয়েরো। জিতেছেন চারটি প্রিমিয়ার লিগ, একটি এফএ কাপ ও পাঁচটি লিগ কাপ।

কোনো বিদেশি খেলোয়াড় হিসেবে ইংল্যান্ডের শীর্ষ লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতাও তিনি। সব মিলিয়ে প্রিমিয়ার লিগের গোলদাতার তালিকায় ১৮১ গোল নিয়ে আছেন চতুর্থ স্থানে।

আবারও স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশে

ক্লাবের ঘোষণার পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিদায় বার্তা দিয়েছেন ৩২ বছর বয়সী এই তারকা স্ট্রাইকার। সেখানে তিনি বলেন, যখন একটা চক্রের শেষ হয়, তখন মনের মধ্যে অনেক রকম অনুভূতি খেলা করে। ম্যানচেস্টার সিটির হয়ে পুরো ১০ বছর খেলতে পারার গর্ব ও ভালো লাগা কাজ করছে আমার মধ্যে। আজকের যুগে এবং এই বয়সে একটা দলের হয়ে এতদিন খেলার উদাহরণ খুব বেশি নেই।

সিটির জার্সিতে আগুয়েরোর সবচেয়ে স্মরণীয় গোল হয়ে থাকবে শুরুর দিকের একটি গোল। ২০১১-১২ প্রিমিয়ার লিগ আসরের শেষ দিনে কুইন্স পার্ক রেঞ্জার্সের বিপক্ষে যোগ করা সময়ে গোল করে জিতিয়েছিলেন দলকে। ওই গোলেই ৪৪ বছরে প্রথম লিগ শিরোপা জিতেছিল ইংল্যান্ডের প্রাচীন এই ক্লাবটি।

তবে, চোট ও অসুস্থতা মিলিয়ে চলতি মৌসুমে অবদান রাখতে পারেননি তেমন। দলের হয়ে এখন পর্যন্ত মাঠে নেমেছেন কেবল ১৪ ম্যাচে, গোল করেছেন তিনটি।

আগুয়েরোকে সম্মান জানাতে ও ক্লাবে তার কীর্তিকে স্মরণীয় করে রাখতে ইতিহাদ স্টেডিয়ামের বাইরে ক্লাবের স্বর্ণযুগের অন্য দুই নায়ক ডিফেন্ডার ভিনসেন্ট কোম্পানি ও মিডফিল্ডার দাভিদ সিলভার পাশে তারও ভাস্কর্য গড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিটি।

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »