৫ হেক্টর সংরক্ষিত বন দখলমুক্ত করলো কক্সবাজার বনবিভাগ

কক্সবাজারের গহীন বনে ঘর করে দখলকৃত সংরক্ষিত বনায়নের পাঁচ হেক্টর বনভূমি উদ্ধার করেছে বনবিভাগ। এ সময় বেশ কিছু কাঁচাবাড়িও উচ্ছেদ করা হয়েছে। দক্ষিণ বন বিভাগের কক্সবাজার সদর রেঞ্জের কলাতলী শুকনাছড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে এসব বনভূমি জবরদখল মুক্ত করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলা অভিযানে এসব বনভূমি দখলমুক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ বনবিভাগের কক্সবাজার সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা সমীর সাহা।

সমীর সাহা জানান, কক্সবাজার সদর রেঞ্জের অধিকাংশ জমি পর্যটন এলাকায়। ফলে এখানকার পাহাড় সমতল সবখানেই দখলদারদের লোলুপ দৃষ্টি পড়ে। চিহ্নিত অপরাধী, এলাকার প্রভাবশালী, সরকার দলসহ নানা রাজনৈতিক মতাদর্শের দখলবাজরা পাহাড়ের সব ধরনের জমি দখলের অপচেষ্টা চালায়। তারা বনায়নের জমিও বাদ দেয়নি। তেমনিভাবে কলাতলীর শুকনাছড়ির সংরক্ষিত বনের ভেতর ঘর করে দখলে নিয়েছিল চিহ্নিত দখলবাজরা।

এটি জানার পর কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তার (ডিএফও) নির্দেশে সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) আব্দুল্লাহ আল-মামুনের নেতৃত্বে বিভিন্ন বিট কর্মকর্তা, স্টাফ ও ভিলেজারগণ বৃহস্পতিবার অভিযানে অংশ নেন। এ সময় ঝিলংঝা মৌজার শুকনাছড়ি এলাকার আরএস ৬৯২ দাগের সরকারি বন ভূমিতে অভিযান চালিয়ে প্রায় পাঁচ হেক্টর বন ভূমি জবরদখল মুক্ত করে বাগান ও বন ভূমি দখলে নেয় বনবিভাগ। গুড়িয়ে দেয়া হয় পাহাড় কেটে করা ঘরগুলো। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, কক্সবাজার সদর রেঞ্জের অধিকাংশ জমি মেরিন ড্রাইভের পূর্বে পর্যটন এলাকায়। এখানকার পাহাড়-সমতল সব জমি-ই মূল্যবান। তাই পরিবেশের ব্যানারে প্রশাসনকে ধোঁকা দিয়ে কিছু লোক এসব সরকারি জমি দখলে উৎসাহিত করছে। প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে তাদের সখ্যতার চিত্র দেখিয়ে তারা দখলদারদের বিশ্বাস জমায়। এভাবে তারা হাতিয়ে নিয়েছে বিপুল অংকের টাকা। পরিবেশের সাইনবোর্ডে আবার গণমাধ্যমের পরিচিতিও প্রদর্শন করে অনেকে। ফলে তাদের এসব অপকর্মের বিষয়ে মুখ খুলেনা বন সংশ্লিষ্টরা। তাই দখল কার্যক্রম প্রতিদিন বাড়ছে।

কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. হুমায়ুন কবির বলেন, সুবিধাভোগীদের লোলুপ-দৃষ্টি সবসময় বন ও বনভূমি প্রতি পড়ে। বাড়ে দখলদার। লোকবল সংকটের কারণে অনেকসময় ইচ্ছে থাকার পরও সময় মতো অভিযান চালানো যায় না। কিন্তু দখলে অভিযুক্ত এলাকাগুলোতে এখন থেকে কঠিন নজরদারি রেখে নিয়মিত উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে। দখলদার যে-ই হোক না কেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আইনের আওতায় আসবে তাদের সহযোগীও।

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »