‘করোনা মহামারি শেষের স্বপ্ন দেখতে পারে বিশ্ববাসী’

করোনা মহামারি বিরুদ্ধে লড়াই করতে ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি ভ্যাকসিন কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে। ব্রিটেন, সংযুক্ত আমিরাত ও বাহরাইনসহ কয়েকটি দেশ জরুরি ক্ষেত্রে ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমতিও দিয়েছে। রাশিয়াও তাদের নিজস্ব ভ্যাকসিন স্পুটনিক-৫ গণহারে প্রয়োগ করা শুরু করেছে। এর ফলে বিশ্ববাসী মহামারি সমাপ্তির স্বপ্ন দেখতে আশার বাণী শুনিয়েছেন স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান টেডরস আধানম গেব্রিয়াসুস।

ভ্যাকসিন আবিষ্কার হলেও এর বণ্টন নিয়ে সন্দিহান ডব্লিউএইচও প্রধান। তিনি বলেন, ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে ধনী ও শক্তিশালী দেশগুলো যেন দরিদ্র দেশগুলোকে অগ্রাহ্য না করে। বিষয়টি সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে। আবিষ্কৃত ভ্যাকসিনে সবার অধিকার আছে। তাই অবশ্যই বিশ্বজুড়ে এটি পণ্য হিসেবে সমানভাবে ভাগ করতে হবে। যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে বৈষম্য আরো বেড়ে যাবে। এতে আরো পিছিয়ে পড়বে দরিদ্র দেশগুলোর মানুষ।

গেব্রিয়াসুস বলেন, এই সংকট যদি বিশ্ব এড়াতে চায়, তাহলে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবায় বিনিয়োগ জরুরি৷ দ্রুত প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবার ভিত্তিকে শক্তিশালী করে তুলতে হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বলেন, সবার মধ্যে দ্রুত ও সঠিকভাবে ভ্যাকসিন বিতরণের জন্যই বিশ্বর স্বাস্থ্য সংস্থার অ্যাক্ট-এক্সিলারেটর প্রোগ্রাম। এর জন্যে ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও সরবরাহের জন্য জরুরি ভিত্তিতে ৪ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন।

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »