লর্ড মাউন্টব্যাটেন

ভারত ভাগের নাটের গুরু ছিলেন লর্ড মাউন্টব্যাটেন। অন্তর্বর্তীকালীন সরকারে কংগ্রেস ও মুসলিম লীগের মধ্যে মতপার্থক্য দানা বেঁধে উঠলে লর্ড মাউন্টব্যাটেন পরিস্থিতির সুযোগ নেন। নির্বাহী পরিষদের সদস্যদের তীব্র মতপার্থক্যের সুযোগে তিনি ধীরে ধীরে পূর্ণ ক্ষমতা নিজের কাছে নিয়ে নেন। লর্ড মাউন্টব্যাটেন বলেন, একমাত্র ভারত বিভক্ত হলে সমস্যার সমাধান হতে পারে।

মাওলানা আজাদ লিখেছেন, লর্ড মাউন্টব্যাটেন উভয় পক্ষকে বোঝান যে পাকিস্তানের সৃষ্টি না হয়ে উপায় নেই। মাউন্টব্যাটেন কংগ্রেসের সিনিয়র নেতাদের মনে পাকিস্তান সৃষ্টির বীজ বপন করেন। আর ভারতীয় নেতাদের মধ্যে সরদার বল্লভভাই প্যাটেল মাউন্টব্যাটেনের এ ধারণা সবার আগে গ্রহণ করেন।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, ভারতবর্ষ ভাগ করার জন্য সরদার প্যাটেল আগে থেকেই মানসিকভাবে অর্ধেক তৈরি ছিলেন। প্যাটেল ধরে নেন, মুসলিম লীগের সঙ্গে কাজ করা যাবে না। সরদার প্যাটেল একপর্যায়ে জনসম্মুখে বলেই ফেলেন, মুসলিম লীগের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য তিনি ভারত ভাগ করতেও রাজি আছেন। এ কথা বলা অত্যুক্তি হবে না যে সরদার প্যাটেলই ছিলেন ভারতভাগের স্থপতি।

 

ভারতবর্ষ বিভক্ত করার ফরমুলা বিষয়ে সরদার প্যাটেল মনস্থির করার পর লর্ড মাউন্টব্যাটেন মনোযোগ দেন জওহরলাল নেহরুর দিকে। এ ধরনের ফরমুলার কথা শুনে প্রথমে নেহরু খুবই রাগান্বিত হন। কিন্তু লর্ড মাউন্টব্যাটেন তাঁকে ভারতবর্ষ ভাগ করার বিষয়ে ক্রমাগত বোঝাতে থাকেন। এ বিষয়ে নেহরুর রাগ প্রশমিত না হওয়া পর্যন্ত মাউন্টব্যাটেন তাঁর তৎপরতা চালাতে থাকেন। কিন্তু ভারত ভাগ করার বিষয়ে জওহরলাল নেহরু শেষ পর্যন্ত কীভাবে রাজি হলেন? মাওলানা আজাদ মনে করেন এর দুটি কারণ আছে।

প্রথমত, জওহরলাল নেহরুকে রাজি করানোর বিষয়ে মাউন্টব্যাটেনের স্ত্রীর একটি বড় প্রভাব ছিল। লেডি মাউন্টব্যাটেন ছিলেন খুবই বুদ্ধিমতী। এ ছাড়া তাঁর মধ্যে আকর্ষণীয় ও বন্ধুত্বপূর্ণ কিছু বিষয় ছিল যার মাধ্যমে তিনি অন্যদের আকৃষ্ট করতে পারতেন। লেডি মাউন্টব্যাটেন তাঁর স্বামীকে খুব শ্রদ্ধা করতেন এবং অনেক সময় যাঁরা প্রথমে তাঁর স্বামীর কাজের সঙ্গে একমত হতে পারতেন না, তাঁদের কাছে স্বামীর চিন্তা-ভাবনা পৌঁছে দিয়ে তাদের সম্মতি আদায় করতেন। ভারত ভাগ করার পেছনে নেহরুর রাজি হওয়ার আরেকটি কারণ ছিলেন কৃষ্ণ মেনন। এই ভারতীয় ব্যক্তি ১৯২০-এর দশক থেকে লন্ডনে বসবাস করতেন। কৃষ্ণ মেনন ছিলেন জওহরলাল নেহরুর একজন বড় ভক্ত এবং নেহরুও কৃষ্ণ মেননকে খুবই পছন্দ করতেন।

কংগ্রেস ও মুসলিম লীগের সমন্বয়ে ভারতবর্ষে যখন অন্তর্র্বর্তী সরকার গঠিত হয় তখন নেহরু কৃষ্ণ মেননকে লন্ডনে হাইকমিশনার নিয়োগ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু কৃষ্ণ মেননের বিষয়ে ব্রিটিশ সরকারের আপত্তি ছিল। কারণ ১৯৩০-এর দশকের প্রথম দিকে ব্রিটেনের লেবার পার্টির একটি প্রতিনিধি দলের সদস্য হয়ে কৃষ্ণ মেনন ভারত সফর করেন।

১৯৪৬ সালের দিকে কৃষ্ণ মেনন যখন আবার ভারতে আসেন তখন লর্ড মাউন্টব্যাটেন বুঝতে পারেন যে ভারত ভাগ করার বিষয়ে কৃষ্ণ মেননের মাধ্যমে মিস্টার নেহরুকে রাজি করানো যাবে।

মাওলানা আজাদ যখন জানতে পারেন ভারত ভাগ করার বিষয়ে জওহরলাল নেহরু ও সরদার প্যাটেল মোটামুটি একমত তখন তিনি ভীষণ হতাশ হন। মাওলানা আজাদ মনে করতেন, ভারত বিভক্ত হলে তা শুধু মুসলমানের জন্যই নয়, পুরো ভারতের জন্যই খারাপ হবে। তাঁর দৃষ্টিতে ভারতবর্ষের মূল সমস্যা ছিল অর্থনৈতিক। সাম্প্রদায়িক সমস্যা কোনো বড় সমস্যা ছিল না। ভারত ভাগের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না নিতে সরদার প্যাটেল ও জওহরলাল নেহরুকে বোঝানোর আপ্রাণ চেষ্টা করেন মাওলানা আজাদ। কিন্তু তাতে লাভ হয়নি। ভারত ভাগের বিষয়ে সরদার প্যাটেল এতটাই অনড় ছিলেন যে তিনি অন্য কারও মতামত শুনতেও রাজি ছিলেন না।

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »