ফাইনাল খেলতে চান তাসকিন-মিরাজরা

মঞ্চে বক্তব্য রাখতে গিয়ে মেহেদী হাসান মিরাজ তুষ্ট করেন হলরুমে উপস্থিত অতিথিদের। তরুণ এই অলরাউন্ডার বলেছেন, আমি খুলনায় বড় হয়েছি। আমার দাদার বাড়ি, নানার বাড়ি বরিশালে। এই প্রথম আমি বরিশালের হয়ে খেলব। আশা করি, আমার আত্মীয়স্বজন, বরিশালের সবাই সমর্থন করবে।

গত শনিবার রাতে রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁ হোটেলের বলরুমে বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের দল ফরচুন বরিশালের লোগো ও জার্সি উন্মোচন অনুষ্ঠানে এমনটা বলেছেন মিরাজ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মত্স্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম ও বিশেষ অতিথি পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ফারুক। এছাড়া ফরচুন বরিশালের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, বিসিবির পরিচালক ইসমাইল হায়দার মল্লিক, আলমগীর হোসেন আলো ও বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন উপস্থিত ছিলেন। অধিনায়ক তামিম ইকবাল ছাড়া ফরচুন বরিশালের বেশির ভাগ ক্রিকেটারই হাজির হয়েছিলেন এই জনাকীর্ণ অনুষ্ঠানে।

বরিশালের হয়ে ফাইনাল খেলার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তাসকিন আহমেদ। দারুণ ফর্মে থাকা ডানহাতি এই পেসার বলেছেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ, ভালো লাগছে প্রথমবারের মতো আমি বরিশালের হয়ে কোন একটি টুর্নামেন্টে খেলতে নামব। আমি চাই যে যাতে এই টুর্নামেন্টটা আমার জন্য স্মরণীয় হয় এবং আমরা যাতে ফাইনালে খেলতে পারি ইনশাআল্লাহ। এটাই আমার ইচ্ছা।’

বিপিএলের মতো বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপে নেই বিদেশি ক্রিকেটার। বিদেশিরা না থাকলেও টুর্নামেন্টের আকর্ষণ কমবে না বলে মনে করেন মিরাজ। সাংবাদিকদের এই অলরাউন্ডার বলেছেন, ‘আমার কাছে মনে হয় বিদেশি খেলোয়াড় না থাকায় আকর্ষণ কম হবে না। আমাদের দেশি খেলোয়াড়রা ভালো একটা সুযোগ পাচ্ছে। নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়ে প্রমাণ করার একটা সুযোগ পাচ্ছে। এর আগে যতগুলো টুর্নামেন্ট হয়েছে, বিপিএল বলুন বা অন্য টুর্নামেন্টগুলো—বিদেশি খেলেছে। বিপিএলে একাদশে চার জন বিদেশি খেলে, দেশি খেলোয়াড় খেলে সাত জন। এখানে কিন্তু ১১ জনই দেশি খেলোয়াড় সুযোগ পাচ্ছে। সব দেশি খেলোয়াড়ই পারফর্ম করবে।’

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »