অশনি সংকেত ও ববিতা

বাংলাদেশে বেশিরভাগ যা ছবি হয় তার বিষয়বস্তু হয় ব্যক্তির সুখ-দুঃখ, নতুবা পারিবারিক সুখ-দুঃখ। সামগ্রিকভাবে সামাজিক কোনো দুঃখ-সুখ উত্থান-পতনের ইতিবৃত্ত বা সমগ্র সমাজকে স্পর্শ করেছে বা নাড়া দিয়েছে এমন কোনো সমস্যা বা ঘটনা নিয়ে বাংলাদেশে ছবি হয় না।

ব্যক্তিগত বা পারিবারিক বিষয়বস্তুও চিত্রণেও এ ধোঁকাবাজি এত মিথ্যাচার যে, সেসবের মধ্যে জীবনের সত্য কোনো প্রকাশকে অভিনয় করে ব্যক্ত করা যায় না। সেদিক থেকে অশনি সংকেত বাংলার একটা সামাজিক বাস্তবকে ছুঁতে পারবে।

এই ছবিতে বাংলাদেশের অনন্যা হিসেবে পরিচিত ববিতা কাজ করছেন। একসঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাটা সমৃদ্ধ করেছে সময়কে। এই যে অভিনয় করি এর থেকে একটা লাভ হয় যে, কত সব অদ্ভুত জায়গায় যাওয়া যায়। কত রকম লোকের সঙ্গে মেশা হয়। কিন্তু অত্যন্ত ধারে-কাছে এই যেসব গ্রাম এরও কী নিদারুণ রকমের কম খবর আমরা রাখি। অশনি সংকেত করতে এসে এটা খুব বোধ করলা

এছাড়া ছবিটি করতে এসে আরো সব সত্য বাস্তব রোল পেতে ইচ্ছে করে। আমাদের দেশে উপকরণের অভাব নেই। তাকে শিল্পসমর্পিত করার লোকের অভাব। সেসব উপকরণ নিয়ে যখন গল্প হবে, এমনকি চলচ্চিত্র হবে তখন যাদের নিয়ে গল্প তারাই হবে তার নায়ক।

লেখাটি সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় তার প্রতিদিনকার ডায়েরিতে লিখেছিলেন ১০ নভেম্বর ১৯৭২ সালে। দীর্ঘ লেখা থেকে সংক্ষিপ্ত করে বাংলাদেশ ও ববিতা প্রসঙ্গ তুলে ধরা হলো।

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »