খরচ কমাতে উপশাখায় ঝুঁকছে ব্যাংকগুলো

ব্যাংকের শাখার প্রায় সব সুবিধাই মিলছে উপশাখাগুলোতে। এসব উপশাখায় ব্যাংকিং সুবিধা পেতে গ্রাহকদের তেমন কোনো অসুবিধা হচ্ছে না। সাধারণত, একটি ব্যাংকের শাখা চালাতে ব্যাংকগুলোর যে পরিমাণ খরচ ও জনবল নিয়োগ দিতে হয় তার তুলনায় উপশাখা চালাতে অনেক কম খরচ ও জনবল নিয়োগ দিতে হয়। শাখার মতো জাঁকজমকপূর্ণ প্রশস্ত অবকাঠামোর দরকার হয় না উপশাখাগুলোতে। আবার উপশাখা খোলার ক্ষেত্রে রেগুলেটরি ঝামেলাও অনেক কম। এসব কারণে ব্যাংকগুলো এখন উপশাখা খোলার দিকে ঝুঁকছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, দেশের কার্যরত ব্যাংকগুলোর মধ্যে ৩০টি ব্যাংক গত মাস পর্যন্ত ১ হাজার ২৭৫টি উপশাখা খুলেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৩২৮টি উপশাখা খুলেছে এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক। এর পরের অবস্থানে রয়েছে আইএফআইসি ব্যাংক। তারা ৩০১টি উপশাখা খুলেছে। আর ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ খুলেছে ১৮২টি উপশাখা। এছাড়া ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক ৫৯টি, সোশ্যাল ইসলামী ও এক্সিম ব্যাংক ৫৪টি করে, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক ৪০টি, যমুনা ব্যাংক ৩৮টি এবং মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ৩২টি উপশাখা চালু করেছে। দেশে ৬০টি ব্যাংক কর্মরত রয়েছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই ব্যাংকগুলো সারাদেশে ১০ হাজার ৬৩০টি শাখা খুলেছে। শাখানির্ভর ব্যাংকিংসেবা সব মানুষের হাতের নাগালে পৌঁছাতে পারেনি। শাখানির্ভর ব্যাংকিং খাতের ঋণ ও ব্যাংকিং সুবিধা মূলত ব্যবহার করছে উচ্চ ও মধ্যবিত্ত শ্রেণি এবং বড় ও মাঝারি শিল্প ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো। নিম্নবিত্ত সাধারণ জনগণ এবং ছোট শিল্প ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে এখন পর্যন্ত ব্যাংকের ঋণ ও অন্যান্য সুবিধা যথেষ্ট পরিমাণে পৌঁছানো সম্ভব হয়নি। সব মানুষকে ব্যাংকিংসেবা দিতে নতুন নতুন সেবা চালুর প্রক্রিয়া ২০০৯ সাল থেকে অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ঐ বছর থেকে অন্তর্ভুক্তিমূলক ব্যাংকিংসেবার ধারণা ব্যাপকভাবে ব্যাংকিং নীতিতে স্থান করে নিয়েছে। খরচ কমিয়ে প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে অন্তর্ভুক্তিমূলক ব্যাংকিং ধারণার একটি হলো উপশাখা ব্যাংকিং।

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »