ট্রাম্পকে ‘জোকার’ বলায় বাইডেনের অনুশোচনা

যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে অনুষ্ঠিত প্রথম বিতর্কে রিপাবলিকান পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ‘জোকার’ বলা ঠিক হয়নি বলে অনুশোচনা প্রকাশ করেছেন ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, তাকে জোকার না বলে জোকারের মতো আচরণ হচ্ছে—এমনটি বলা যেতে পারত।

গতকাল সোমবার (৫ অক্টোবর) ফ্লোরিডার মায়ামিতে এনবিসি টিভির লেস্টার হল্টের সঙ্গে এক টাউন হল সভায় জো বাইডেন এ কথা বলেন।

ওহাইও অঙ্গরাজ্যের ক্লিভল্যান্ড নগরীতে কেস ওয়েস্টার্ন রিজার্ভ ইউনিভার্সিটিতে গত ২৯ সেপ্টেম্বর প্রথম বিতর্কে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও জো বাইডেনের মধ্যে উত্তপ্ত বিতর্ক চলে। তারা বিশ্বাসযোগ্যতা ও কর্মদক্ষতা নিয়ে একে অন্যকে আক্রমণ করেন।

বিতর্কে ডোনাল্ড ট্রাম্পই কথার পিঠে কথা বলেছেন বারবার। তাকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সঞ্চালক ক্রিস ওয়ালেস হিমশিম খাচ্ছিলেন। প্রতিপক্ষ জো বাইডেন বক্তব্য রাখতে গিয়ে হোঁচট খেয়েছেন বারবার। ট্রাম্পকে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ‘পোষা কুকুরছানা’ও বলেছেন বাইডেন। মার্কিন প্রেসিডেন্টকে লক্ষ্য করে বাইডেন বলেন, ‘আপনি কি চুপ করবেন?’একপর্যায়ে বলেন, ‘এই জোকারের কাছ থেকে কোনো কথা আদায় করা শক্ত।’

এদিকে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কয়েকদিন ওয়াশিংটন ডিসির হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে গতকাল বিকেলে হোয়াইট হাউসে ফিরে গেছেন। সেখানে ফিরেই তিনি মাস্ক খুলে ফেলেন। অবশ্য তড়িঘড়ি করে ট্রাম্পের হাসপাতাল থেকে প্রত্যাবর্তন নিয়ে নেতিবাচক কিছু বলেননি জো বাইডেন।

প্রেসিডেন্টের স্বাস্থ্য ভালো হচ্ছে জেনে খুশি হয়েছেন উল্লেখ করে বাইডেন বলেন, চিকিৎসকের পরামর্শের পর তিনি এ নিয়ে অন্য কিছু বলতে চান না। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জন্য বিশ্বের অন্যতম সেরা স্বাস্থ্য সেবা রয়েছে বলেও বাইডেন উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করোনায় সংক্রমিত হওয়ার পর তিনি তার খোঁজখবর নেয়ার উদ্যোগ নিয়েছিলেন। তবে বিষয়টিকে অনুপ্রবেশের মতো দেখাবে বলে সে চিন্তা থেকে পরে সরে এসেছেন।

হোয়াইট হাউসে ফিরেই ডোনাল্ড ট্রাম্পের মাস্ক অপসারণ নিয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করেননি বাইডেন। তবে টাউন হল সভায় বলেন, যে কেউ ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার পর যদি বলে মাস্ক কোনো ব্যাপার নয়, সামাজিক ব্যবধান কোনো ব্যাপার নয়—তবে তাদের নিজের ব্যাপারে নিজেকেই দায়িত্ব নিতে হবে।

ট্রাম্পের সঙ্গে প্রথম সরাসরি বিতর্কের অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে বাইডেন বলেন, ৯০ মিনিটের বিতর্কটি শান্তিপূর্ণ রাখা কঠিন হয়ে উঠেছিল। পুরো বিষয়টিকে একটি চেঁচামেচির খেলায় তিনি পরিণত করতে চাননি।

বিতর্কে কথা বলতে বলতে গিয়ে বাইডেন বারবার ট্রাম্পের বাধার মুখে পড়ায় ওই বিতর্ক নিয়ে এখনো দেশ-বিদেশে সমালোচনা হচ্ছে। এ কারণে প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেট কমিশন পরের বিতর্কে কিছু পরিবর্তন ও নিয়মনীতি আরও কড়া করার কথা বলেছে। জো বাইডেন বলেছেন, প্রেসিডেন্টের এমন আচরণ দেশের জন্যই লজ্জাজনক হয়েছে বলে তিনি মনে করেন।

Rupantor Television

A IP Television Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »